ঢাকাবুধবার , ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২২
  1. আনন্দধারা
  2. আন্তর্জাতিক
  3. ইসলাম ও জীবন
  4. কৃষি ও অর্থনীতি
  5. ক্যাম্পাস
  6. খুলনা
  7. খেলাধুলা
  8. গল্প ও কবিতা
  9. গুরুত্বপূর্ণ ওয়েব লিংক
  10. চট্রগ্রাম
  11. চাকুরী বার্তা
  12. জনমত
  13. জাতীয়
  14. ঢাকা
  15. পরিবেশ ও বিজ্ঞান

মাতৃভাষায় রচিত গবেষণাধর্মী বই গল্পে গল্পে জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং

প্রতিবেদক
বুলেটিন বার্তা
ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২২

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ আমর একুশে গ্রন্থমেলায় হোসাইন মোহাম্মদ মাসুমের সম্পাদনা ও রচনায় প্রথমবারের মতো মাতৃভাষা বাংলায় প্রকাশিত হয়েছে গবেষণাধর্মী বই গল্পে গল্পে জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং। মঙ্গলবার (২২ ফেব্রুয়ারি,২০২২) বিকেলে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিত মেলায় বইটির মোড়ক উন্মোচন করা হয়। বইটি পওয়া যাচ্ছে অমর একুশে গ্রন্থমেলার তাম্রলিপি প্রকাশনীর ২১ নম্বর স্টলে।

পৃথিবী পরিবর্তনকারী নতুন জিনম এডিটিং টেকনোলজি CRISPR CAS9  নিয়ে লেখা বইটি জিনম এডিটিং নিয়ে বাংলা ভাষার প্রথম বই। বর্তমান সরকারের ভিশন-৪১ ও ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ায় বইটি সহযোগী হবে বলে আশা লেখকের। উন্নত বিশের সঙ্গে এগিয়ে যেতে দেশের ক্রমবর্ধমান অর্থনীতিকে সচল রাখতে জিমন এডিটিং গুরুত্বপূর্ণ। দেশের কৃষিজ ও প্রণিজ উন্নয়নে জিনম সিকোয়েন্স গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবে বলে আশা লেখকের।

উন্নয়ন অর্থনীতি ও কৃষিজ উৎপাদন বাড়াতে পণ্যের জিনোম এডিটিং প্রয়োজন। এর মাধ্যেমে সহজেই পণ্যের উৎপাদন বাড়বে কয়েকগুণ। প্রধানমন্ত্রী দেশরত্নশেখ হাসিনা দেশের গবেষণায় বাংলা ভাষা ব্যবহারে যে নির্দেশনা দিয়েছেন, লেখক সেই পরিকল্পনা থেকেই মাতৃভাষায় জিনোম এডিটিং গবেষণায় বই লেখার অনুপ্রেরণা পেয়েছেন।

মাতৃভাষায় গবেষণাধর্মী বই খুবই কম। জীববিজ্ঞান বিষয়ে শিক্ষার্থীদের আগ্রহী করতেই বইটি লেখা। এই বইয়ের মাধ্যমে যেকোন বয়সের শিক্ষার্থীরা জীববিজ্ঞান গবেষণায় আগ্রহী হবে। দুনিয়া পরিবর্তনকারী একটি নতুন বিপ্লব হচ্ছে জিনোম এডিটিং,সেটা জানানোর জন্যই বইটি লিখা। জিনোম এডিটিং খুবই নতুন একটি মাধ্যম, যা স্বাস্থ্য, কৃষিসহ শক্তি উৎপাদনের খাতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখছে। উন্নত বিশ্ব জিনোম এডিটিংয়ের মাধ্যমে উৎপাদনকে কয়েকগুণ বাড়িয়েছে। কার্বনের নিঃসরণের হার কমিয়ে এনেছে। বাংলাদেশের ৪র্থ এবং ৫ম শিল্প বিল্পব্ওে সহযোগী হিসেবে অবদান রাখবে জিনোম এডিটিং।

মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের খ্যাতিনামা বিজ্ঞানী অধ্যাপক ড. তোফাজ্জল ইসলাম বলেন, “বইটি বাংলাদেশের বায়োটেকনোলজি ও জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং গবেষণার ভাবধারায় পরিবর্তন নিয়ে আসবে। শিক্ষার্থীদের বায়োলজি গবেষণায় আগ্রহী করে তোলবে।”

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিসারিজ বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ শামসুর রহমান বলেন, “মাতৃভাষায় লেখা বইটি আধুনিক প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞান গবেষণায় সহায়ক হিসেবে কাজ করবে। পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের উন্নত বিশ্বের গবেষণার সঙ্গে সম্পৃক্ত করতে পারবে।”

আরও পড়ুনঃ  গবেষণা লব্ধ জ্ঞানকে আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে কাজে লাগাতে হবে

বইটির লেখক হোসাইন মোহাম্মদ মাসুম বলেন, “বইটি ছাত্র-ছাত্রীদের এবং গবেষকদের বায়োলজি গবেষণায় প্রব্লেম সলভিং এবং জিনম এডিটিং-এর বাস্তবিক ব্যবহার সহজে বুঝতে এবং প্রয়োগ করতে সহায্য করবে।”

মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- পটুয়াখালি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক মাহমুদুল হাসান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক মাহফুজা খাতুন এবং তাম্রলিপি প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী তারিকুল ইসলাম রনিসহ অনেকে।

সর্বশেষ - জাতীয়

নির্বাচিত সংবাদ

হাবিপ্রবি পরিকল্পনা শাখার নতুন পরিচালক অধ্যাপক ড. শফিকুল ইসলাম

ব্যয় সংকোচন নীতিতে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের বাজেট বাস্তবায়নের নির্দেশনা ইউজিসি’র

ফুলবাড়ীতে আশংকাজনক হারে বাড়ছে ভাইরাস জ্বরে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা

ইকোলজিক্যাল ফার্মিং সম্প্রসারণে দুই দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ

হাবিপ্রবিতে বিশ্ব মোল দিবস পালিত

এসডিএস’র আয়োজনে নারী দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা ও শপথ গ্রহণ

ইউজিসি বঙ্গবন্ধু ফেলো হিসেবে যোগ দিলেন প্রফেসর আফজাল

বিশ্ব পরিবেশ দিবসে হাবিপ্রবিতে বৃক্ষরোপণ ও ক্লিন ক্যাম্পাস কর্মসূচী

কুড়িগ্রাম ভেটেরিনারি এসোসিয়েশনের আহবায়ক ড. গোলজার, সদস্য সচিব মারুফ

ইবিতে ছাত্রী নির্যাতন

ইবিতে ছাত্রী নির্যাতনের তদন্ত প্রতিবেদন জমা