ঢাকাবুধবার , ১৮ জানুয়ারি ২০২৩
  1. আনন্দধারা
  2. আন্তর্জাতিক
  3. ইসলাম ও জীবন
  4. কৃষি ও অর্থনীতি
  5. ক্যাম্পাস
  6. খুলনা
  7. খেলাধুলা
  8. গল্প ও কবিতা
  9. গুরুত্বপূর্ণ ওয়েব লিংক
  10. চট্রগ্রাম
  11. চাকুরী বার্তা
  12. জনমত
  13. জাতীয়
  14. ঢাকা
  15. পরিবেশ ও বিজ্ঞান

হলুদ ফুলকপি চাষে লাভবান শরীয়তপুরের আব্দুর রাজ্জাক

প্রতিবেদক
বুলেটিন বার্তা
জানুয়ারি ১৮, ২০২৩
হলুদ ফুলকপি

আব্দুল মান্নান: সাদা রং এর ফুলকপি দেখতে মানুষ অভ্যস্ত হলেও শরীয়তপুরের স্থানীয় বাজারে এখন পাওয়া যাচ্ছে হলুদ ও বেগুনি রং এর ফুলকপি। খাইতে সুস্বাদু ও পুষ্টিগুণে ভালো হওয়ায় দিন দিন নতুন এই জাতের ফুলকপির প্রতি আগ্রহ ও চাহিদা বাড়ছে মানুষের। সাদা রং এর ফুলকপির তুলনায় কেজিতে ৪০-৫০ টাকা বেশি হলেও বাজারে আসামাত্রই দ্রুত বিক্রি হয়ে যাচ্ছে। তবে চাহিদা থাকলেও পর্যাপ্ত জোগান না থাকায় অনেকেই ফিরে যাচ্ছেন বলে জানান স্থানীয়ভাবে খুচরা ও পাইকারী সবজি বিক্রেতা।

জানা যায়, শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার জয়নগর ইউনিয়ন চরখোরাতলা গ্রামের কৃষক আব্দুর রাজ্জাক ভুইয়া রঙিন জাতের এই ফুলকপির চাষ করেন। স্থানীয় বেসরকারি উন্ননয়ন সংস্থা এসডিএস’র সমন্বিত কৃষি ইউনিটের আওতায় তিনি প্রথমবার হলুদ ও বেগুনি রঙ্গের ফুলকপি চাষ করেন। এই বছর পরীক্ষামূলকভাবে তিনি তাঁর ১০ শতক জমিতে প্রায় ১০০০ টি রঙিন জাতের ফুলকপির চারা রোপন করেন। চারা রোপনের ৬৫ দিনের মধ্যে হলুদ জাতের ফুলকপি বিক্রি উপযুক্ত হয়। বাজারে এক একটি হলুদ ফুলকপি ১০০-১২০ টাকা কেজি হিসেবে বিক্রি হচ্ছে।

এ বিষয়ে সবজি চাষী আব্দুর রাজ্জাক জানান, হলুদ বা বেগুনি জাতের ফুলকপি চাষ করার জন্য আলাদা কোন জ্ঞানের প্রয়োজন নেই। সাদা ফুলকপি যেভাবে চাষ করতে হয় সেভাবে হলুদ ফুলকপিও চাষ করা যায়। এবার প্রথমবার আমি এসডিএস’র খাজি আলম ভাইয়ের সহায়তায় ১০ শতক জমিতে এই ফুলকপি চাষ করি। এতে আমার প্রায় ১০ হাজার টাকা খরচ হয় আর আমি ফুলকপি বিক্রি করেছি প্রায় ৫০ হাজার টাকা। সবমিলে ১০শতক জমিতে ফুলকপি করে আমার প্রায় ৪০ হাজার টাকার মতো লাভ হয়েছে। প্রতিদিন দূর দূরান্ত থেকে ফুলকপির ক্ষেত দেখতে অনেক মানুষ আসে। বাজারে চাহিদা বেশি থাকায় দ্রুতই আমার ক্ষেতের ফুলকপি শেষ হয়ে গেছে। আগামী বছর আরও ব্যাপকভাবে হলুদ ফুলকপির চাষ করতে চাই আমি।

আরও পড়ুনঃ  হাবিপ্রবিতে প্রজেক্ট কমপ্লিশন ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত

খোরাতলা গ্রামের আরেক সবজি চাষী শাহাজাহান মাদবর বলেন, হলুদ ফুলকপি দেখতে অনেক সুন্দর এবং বাজারেও এর চাহিদা বেশি। সাদা ফুলকপির তুলনায় বাজারে হলুদ রঙের এক একটি ফুলকপি ৩০-৪০ টাকা কেজিতে বেশি বিক্রি হচ্ছে। এসডিএস বীজ দিয়ে সহযোগিতা করলে আগামী বছর এ জাতের ফুলকপির চাষ করার ইচ্ছা আছে আমার।

এসডিএস এর কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ খাজি আলম বলেন, পিকেএসএফ এর সমন্বিত কৃষি ইউনিটের সহযোগিতায় এ অঞ্চলে ব্রোকলি, লেটুস, রেড বিট, রেড ক্যাবেজ, স্কোয়াস, ক্যাপসিকামের চাষ করা হচ্ছে। এ বছর সর্বপ্রথম আব্দুর রাজ্জাক ভুইয়াকে হলুদ ও বেগুনি রঙ্গের ফুলকপির বীজ দেওয়া হয়। হলুদ ফুলকপি বিক্রি শেষ হলেও বেগুনি ফুলকপি বিক্রি হতে আরো সাত দিন সময় লাগবে। আমরা কৃষককে ফুলকপি চাষে সবধরনের পরামর্শ দিয়ে থাকি। রঙ্গিন ফুল কপিতে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন ও এন্টিঅক্সিডেন্ট থাকায় ক্যানসার ও হৃদরোগের ঝুকি হ্রাস করে। বাজারে ব্যাপক চাহিদা থাকায় আমরা আশা করছি, আগামীতে এ অঞ্চলে রঙ্গিন ফুলকপির চাষ ব্যাপকভাবে সম্প্রসারণ হবে।

সর্বশেষ - জাতীয়

নির্বাচিত সংবাদ

ইমিরেটাস প্রফেসর আফজাল হোসেন এর হাবিপ্রবি এফপিই ল্যাব পরিদর্শন

কুড়িগ্রাম কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে উপাচার্যের শুভেচ্ছা

বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের প্রতিবাদে ঢাকায় বহ্নিশিখার মানববন্ধন

স্বশরীরে পরীক্ষা নিবে হাবিপ্রবি

শিক্ষার্থীদের রাতের মধ্যেই হল ছাড়তে বাধ্য করলো হাবিপ্রবি প্রশাসন

ইকোলজিক্যাল ফার্মিং সম্প্রসারণ বিষয়ক প্রারম্ভিক কর্মশালা

শোকাবহ আগস্ট হাবিপ্রবি

শোকাবহ আগস্টে মাসব্যাপী কর্মসূচি পালন করবে হাবিপ্রবি

ছবি সংগৃহীত

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন আজ

ঠাকুরগাঁওয়ে লাগামহীন ভাবে বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা

অধ্যাপক তোফাজ্জল ইসলাম

বশেমুরকৃবি গবেষণা সম্মাননা-২০২৩ পেলেন অধ্যাপক ড. তোফাজ্জল