ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২১ অক্টোবর ২০২১
  1. আনন্দধারা
  2. আন্তর্জাতিক
  3. ইসলাম ও জীবন
  4. কৃষি ও অর্থনীতি
  5. ক্যাম্পাস
  6. খুলনা
  7. খেলাধুলা
  8. গল্প ও কবিতা
  9. গুরুত্বপূর্ণ ওয়েব লিংক
  10. চট্রগ্রাম
  11. চাকুরী বার্তা
  12. জনমত
  13. জাতীয়
  14. ঢাকা
  15. পরিবেশ ও বিজ্ঞান

ভাষা সৈনিক আব্দুর রৌফ চৌধুরীর সমাধিতে গণতান্ত্রিক শিক্ষক পরিষদের শ্রদ্ধা নিবেদন

প্রতিবেদক
বুলেটিন বার্তা
অক্টোবর ২১, ২০২১

মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, ভাষাসৈনিক, সাবেক প্রতিমন্ত্রী প্রয়াত জননেতা আব্দুর রৌফ চৌধুরীর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন দিনাজপুরের হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী ‘গপণতান্ত্রিক শিক্ষক পরিষদ’।

প্রয়াত জননেতা আব্দুর রৌফ চৌধুরীর ১৪তম মৃত্যুবাষিকীতে তার সমাধিতে পুস্পস্তবক অর্পনের মাধ্যমে এ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তারা। । এ সময় গণতান্ত্রিক শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রফেসর ডা.মো: ফজলুল হকের নেতৃত্বে উপস্থিত ছিলেন প্রফেসর ড.শ্রীপতি সিকদার, প্রফেসর ড.ইমরান পারভেজ, ড. মো: রবিউল ইসলাম, মো: আব্দুল মোমিন সেখ প্রমুখ।

উল্লেখ্য, আব্দুর রৌফ চৌধুরী ১৯৫২ সালে সিরাজগঞ্জ থেকে মেট্টিকুলেশন, এরপর ঢাকা কলেজ থেকে এইচএসসি ও দিনাজপুর সুরেন্দ্রনাথ কলেজ থেকে বিএ পাস করেন। সিরাজগঞ্জে পড়ার সময়েই তিনি ভাষা আন্দোলনে একজন সক্রিয় সংগঠক ছিলেন এবং এজন্য তাকে কারাবরণ করতে হয়। পরে এইচএসসি পরীক্ষা দেন ঢাকা কলেজ থেকে। সেখানে পড়াবস্থায় বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে তার পরিচয় হয়। পরে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে দিনাজপুরে ফিরে আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করেন।

তিনি পাকিস্তান আমলে বৃহত্তর দিনাজপুর (দিনাজপুর-ঠাকুরগাঁও-পঞ্চগড়) জেলা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। স্বাধীনতার পরপর ১৯৭২ সালে কৃষক লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। পাশাপাশি তিনি সুরেন্দ্রনাথ কলেজের ছাত্র সংসদের নেতৃত্ব দেন। ছিলেন কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৬ এর পূর্ববর্তী সময়ে দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন একাধারে ১৫ বছর। জননেতা আব্দুর রৌফ চৌধুরী ১৯৯০ সালে বোচাগঞ্জ উপজেলার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ১৯৯৬ সালে দিনাজপুর-১ আসন (বীরগঞ্জ- কাহারোল) থেকে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ডাক, তার ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

২০০২ সালে জোট সরকারের শাসনামলে ১৫ আগস্ট সেতাবগঞ্জে জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচিতে পুলিশের বাধার সম্মুখীন হয়ে মাথায় গুরুতর আঘাত পান তিনি। এ আঘাত থেকে আর পুরোপুরি সেরে উঠতে পারেননি এ নেতা। ১৯৬২ সালের শিক্ষা আন্দোলন, ১৯৬৬ সালের ৬ দফা আন্দোলন, ১৯৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান ও ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের ১১ দফা আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন তিনি। এসব অঞ্চলে পঁচাত্তর পরবর্তী সামরিক শাসনবিরোধী আন্দোলনে সামনের কাতারে নেতৃত্ব দেন। মুক্তিযুদ্ধ আব্দুর রৌফ চৌধুরী মুক্তিযুদ্ধকালে মুজীবনগর সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদের দূত হিসেবে ছিলেন পূর্বাঞ্চলীয় জোনে। সেই সঙ্গে বোচাগঞ্জ উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধাদের সংগঠক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। দীর্ঘ ৯ মাস রক্তক্ষয়ী সংগ্রামে প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণের মাধ্যমে ১৯৭১ সালের ৬ ডিসেম্বর বোচাগঞ্জ উপজেলাকে পাক-হানাদার মুক্ত করেন। প্রয়াত আব্দুর রৌফ চৌধুরীর একমাত্র পুত্র খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বর্তমানে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের নৌ-পরিবহণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী।

আরও পড়ুনঃ  ৩’শ পরিবারকে গণতান্ত্রিক শিক্ষক পরিষদের ঈদ উপহার বিতরণ

সর্বশেষ - জাতীয়

নির্বাচিত সংবাদ