ঢাকাশনিবার , ১৯ জুন ২০২১
  1. আনন্দধারা
  2. আন্তর্জাতিক
  3. ইসলাম ও জীবন
  4. কৃষি ও অর্থনীতি
  5. ক্যাম্পাস
  6. খুলনা
  7. খেলাধুলা
  8. গল্প ও কবিতা
  9. গুরুত্বপূর্ণ ওয়েব লিংক
  10. চট্রগ্রাম
  11. চাকুরী বার্তা
  12. জনমত
  13. জাতীয়
  14. ঢাকা
  15. পরিবেশ ও বিজ্ঞান

ফুটবলের যাদুকর পেলে- ম্যারাডোনা নাকি বাংলাদেশি সামাদ

প্রতিবেদক
বুলেটিন বার্তা
জুন ১৯, ২০২১

প্রায় ৮০ বছর আগের ঘটনা। পেলে-ম্যারাডোনার জন্মও হয়নি তখন। কথিত আছে যে, সর্ব ভারতীয় ফুটবল দল লন্ডনে গেছে লন্ডনের ফুটবল দলের বিরুদ্ধে ফুটবল খেলার জন্য, সে দলে রয়েছেন সামাদ নামে একজন ফুটবলার। লন্ডনীরা প্রথমে ভারতীয় দলের সংগে খেলতে চায় নি, নাক সিঁটকিয়েছে। পড়ে যখন শুনলো সামাদ নামের একজন ভারতীয় খেলোয়ার নাকি চ্যালেঞ্জ দিয়েছে যে সে গুণে গুণে একহালি গোল করবে লন্ডনীদের বিরুদ্ধে, তখন সেই খেলোয়ারটিকে নাকানি চুবানী খাওয়ানোর উদ্দ্যশে তারা খেলতে রাজী হয়।

খেলা শুরু হয়েছে, মাঠ লোকে লোকারন্য। সামাদ নামের সেই নেটিভ ইন্ডিয়ানটি কিরকম নাস্তানাবুদ হয় তা দেখার জন্য দলে দলে সাহেব মেমরা মাঠে হাজির হয়েছে। কিন্তু সামাদ সাহেবের খেলায় তেমন মনোযোগ নেই, তিনি এক পোয়া বাদাম কিনে কুট কুট করে তা চিবুচ্ছেন।সাহেবদের দল ভারতীয় দলকে কোনঠাসা করে ফেলেছে, কিন্তু তবুও সামাদ সাহেবের কোন ভ্রুক্ষেপ নেই। তখন দলের সবাই সামাদ সাহেবকে অনেক কাকুতি মিনতি করতে লাগলো, অবশেষে সামাদ সাহেব বল ধরলেন। একে একে সবাইকে কাটিয়ে গোলে শট নিলেন, কিন্তু গোল হলো না, বল পোষ্টে লেগে ফিরে এলো।

সামাদ তখন রেফারীকে বললেন, ক্রস বারের হাইট ঠিক নেই, মেপে দেখুন। রেফারী ফিতে দিয়ে মেপে দেখেন তাজ্জব ব্যাপার! সত্যি ক্রস বারের হাইট চার
ইঞ্চি কম। রেফারী সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে গোল ডিক্লেয়ার করলেন। এরপর গুণে গুণে আরও তিনটি গোল করলেন। সাহেবরা গুণের কদর করতে জানে, সামাদ সাহেবকে তারা ফুটবল যাদুকর উপাধি প্রদান করলো। ফুটবল জাদুকর সামাদ। যিনি কিনা পেলে, ম্যারাডোনা, ষ্টেফানো, গারিঞ্জা, বেকেনবাওয়ার, পুস্কাসের বহু বছর আগেই ফুটবলকে দান করেছিলেন শৈল্পিকতা, আর নৈপুণ্যতা।

মুলত তার একক নৈপুণ্যে সর্বভারতীয় ফুটবল টিম তৎকালীন গ্রেট ব্রিটেনের মত শক্তিশালী টিমকে ৪-১ গোলে আর ইউরোপীয় টিমকে ২-১ গোলে পরাজিত করে। হতবাক হয়ে যায় পুরো ইউরোপের ফুটবল বোদ্ধারা। তার বর্ণাঢ্য ফুটবল ক্যারিয়ারের সূচনা হয় কিন্তু রংপুরের তাজ ক্লাবের হয়ে। সেখান থেকে তিনি যোগ দেন কলকাতার এরিয়েন্স ক্লাবে। পরবর্তীতে তিনি ইষ্ট বেঙ্গল রেলওয়ে ক্লাব, কোলকাতা মোহনবাগান, ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাবের হয়েও খেলেছেন।ক্যারিয়ারের শেষের দিকে তিনি কোলকাতা মোহমেডানের হয়ে কিছুদিন খেলেছেন।

আরও পড়ুনঃ  ইতিহাস সৃষ্টির পথে এবারের কাতার বিশ্বকাপ

আমাদের দেশের মানুষেরা পেলে চেনে, ম্যারাডোনা চেনে, হালের মেসি রোনাল্ডো, নেইমারকে চেনে, কিন্তু দেশের গর্ব সামাদ জাদুকরকে চেনে না। ভাল মত জানে না। আমি নিজেও চিনতাম না। অবশ্য দোষ দিয়েও লাভ নেই। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন যখন জানানোর ব্যাবস্থা করে না, পর্যাপ্ত সুযোগ সৃষ্টি করে না, তখন সবাই জানবে কিভাবে?বিহারের পুর্ণিয়ায় জন্ম গ্রহনকারী এই কৃতি মানুষটি
সাতচল্লিশে ভারত বিভক্তির পর কলকাতা থেকে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে চলে এসেছিলেন। তখন বোধ হয় বয়সজনিত কারনে আর খেলতেন না, সরকার তাঁকে রেল বিভাগে একটি চাকুরি প্রদান করেছিলো। তিনি থাকতেন দিনাজপুরের পার্বতীপুরে, সেখানেই মৃত্য হয়েছিল এই কিংবদন্তি ফুটবলারের।

তথ্যসূত্র: ইন্টারনেট

সর্বশেষ - জাতীয়

নির্বাচিত সংবাদ

জনতার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গিয়ে চড়-থাপ্পড় খেলেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট

হাবিপ্রবিতে কৃষি প্রকৌশল বিভাগের শিক্ষার্থীদের প্রফেশনাল স্কিলসে প্রশিক্ষণ প্রদান

শেখ হাসিনা ধরলা সেতু

জ্বলছে না সড়ক বাতি, শঙ্কা নিয়ে শেখ হাসিনা ধরলা সেতু পারাপার

শেকৃবিতে গুচ্ছ পদ্ধতিতে GST ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

মৃতুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই জঙ্গিকে ধরিয়ে দিলে ১০লাখ টাকা পুরস্কার

নদী বাঁচাও দাবিতে গ্রীন ভয়েস হাবিপ্রবি’র সাইকেল র‍্যালি ও মানববন্ধন

ফুলবাড়ী সীমান্ত থেকে ৪১ কেজি গাঁজা উদ্ধার

বশেমুরকৃবি শিক্ষক সমিতির আয়োজনে গুণীজন সম্মাননা 

বাংলাদেশ মৎস্য হাসপাতালের আয়োজনে রচনা প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত

soyabean

লবণসহিষ্ণু উচ্চ ফলনশীল সয়াবিনের জাত উদ্ভাবনে সাফল্য