ঢাকাশুক্রবার , ১৭ জুন ২০২২
  1. আনন্দধারা
  2. আন্তর্জাতিক
  3. ইসলাম ও জীবন
  4. কৃষি ও অর্থনীতি
  5. ক্যাম্পাস
  6. খুলনা
  7. খেলাধুলা
  8. গল্প ও কবিতা
  9. গুরুত্বপূর্ণ ওয়েব লিংক
  10. চট্রগ্রাম
  11. চাকুরী বার্তা
  12. জনমত
  13. জাতীয়
  14. ঢাকা
  15. পরিবেশ ও বিজ্ঞান

বন্যার কবলে শাবিপ্রবি ক্যাম্পাস,বিপাকে শিক্ষার্থীরা

প্রতিবেদক
বুলেটিন বার্তা
জুন ১৭, ২০২২

গত কয়েকদিন ভারী বর্ষণ, পাহাড়ি ঢলে ফের বন্যার কবলে পড়েছে সিলেটের মানুষ। এতে প্রতি মুহূর্তে বাড়ছে সুরমা-কুশিয়ারার পানি। ফলে নগরের ভেতরে পানি প্রবেশ করায় শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (শাবিপ্রবি) ক্যাম্পাসেও বন্যার পানি ঢুকেছে। এতে কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে পা থেকে হাঁটু পর্যন্ত পানি উঠেছে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলোতে।

সরেজমিনে দেখা যায়, ক্যাম্পাসের এক কিলো রোডে, চেতনা-৭১ এর সামনে, একাডেমিক ভবন এ, বি, ডি, ই এর সামনে, ইউনিভার্সিটি সেন্টার, প্রথম ছাত্রী হল, প্রধান প্রধান সড়কগুলোর অধিকাংশ জায়গায় হাঁটু পর্যন্ত পানি উঠেছে। এতে স্বাভাবিক চলাচল ব্যাহত হয়ে বিপাকে পড়েছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। তাতে সময় যতই গড়াচ্ছে বাড়ছে বন্যার পানি, বাড়ছে শঙ্কা। অন্যদিকে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন জায়গায় বিষাক্ত পোকামাকড়, সাপ, কেঁচোর উপদ্রব বাড়ায় শঙ্কিত শিক্ষার্থীরা। কেউ কেউ এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাতায়াত করতে না পারায় বিভিন্ন জায়গায় অবস্থান করছেন।

বন্যার কথা জানিয়ে প্রথম ছাত্রী হলের শিক্ষার্থী রায়হানা ইসলাম বলেন, ক্যাম্পাসে পানি থেকেও বড় সমস্যা হলের পানি, নেটওয়ার্ক, বিদ্যুৎ। পানি বাড়ার কারণে হলের মটর খুলে ফেলতে হইছে, এখন যে পানিটুকু আছে ট্যাংক ও ওটাই ভরসা। কারেন্ট নাই, আজকে রাতে কারেন্ট আসার সম্ভাবনাও দেখছি না। তিনি বলেন, এককিলো ও হলের আসা-যাওয়ার রাস্তায় পানি হয়ে যাওয়ায় যান চলাচল করছে না। টমটম ও অটো রিক্সাগুলোও বন্ধ হয়ে গেছে। এতে আমাদের চলাচলে ব্যাঘাত হচ্ছে। আমরা পানি বন্দি হয়ে পড়েছি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী তানভীর রহমান তারেক বলেন, হঠাৎ করে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে পানি প্রবেশ করায় চলাচলে সমস্যা হচ্ছে। পানির কারণে প্রধান কয়েকটি সড়ক ডুবে যাওয়ায় স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় আমরা শঙ্কিত হয়ে পড়ছি। এছাড়া মেসে থাকা অনেক শিক্ষার্থীও বন্যার পানির কারণে বিপাকে পড়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, আমরা হলে প্রভোস্টসহ সকলের সাথে কথা বলেছি। ক্যাম্পাস ও হলের আশেপাশে পানি বাড়ায় পোকামাকড় ও সাপের উপদ্রব বাড়ছে। হলের শিক্ষার্থীদের সতর্ক থাকতে বলেছি। হলের শিক্ষার্থীদের প্রতি আহ্বান থাকবে রাতে ঘুমানোর সময় দরজা-জানালা ভালোভাবে বন্ধ করে মশারি টাঙ্গিয়ে ঘুমাতে। রাতে কী হবে? সকালে উঠে কি দেখবো? তা নিয়ে আমরা চিন্তিত।

আরও পড়ুনঃ  লকডাউনে দিনাজপুর : স্থগিত হাবিপ্রবির পরীক্ষা

বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সিনিয়র শিক্ষক বলেন, ১৯৯৮ সালের পর এবার শাবিপ্রবির ক্যাম্পাসে বন্যার পানি প্রবেশ করেছে। বিগত ২২ বছরে এমন পানি আর হয়নি। এবার সিলেটেও একের পর এক বন্যা হচ্ছে। আমাদের স্বাভাবিক জীবন যাপন ব্যাহত হচ্ছে। সামনে আরও ভারী বর্ষণের সম্ভাবনা আছে, তাই বিভিন্ন সমস্যা পড়ছে।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক শাহপরাণ হল, প্রথম ছাত্রী হল, বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হল, ক্যাম্পাসের পার্শ্ববর্তী এলাকা তপোবন, সুরমা, নয়াবাজার, টুকেরবাজার, টিলারগাঁওসহ বিভিন্ন এলাকায় বন্যার পানি প্রবেশ করেছে। তাই স্বাভাবিক জীবন যাপনে বাঁধার সম্মুখীন হচ্ছেন শিক্ষার্থীরা। এতে শঙ্কায় আছেন আবাসিক-অনাবাসিক হলেন শিক্ষার্থীরা।

সর্বশেষ - জাতীয়

নির্বাচিত সংবাদ

ক্যান্সার আক্রান্ত হাবিপ্রবি কর্মচারী বাবুল আজাদ বাঁচতে চায়

বাড়িতে বাবার লাশ রেখে অশ্রুসিক্ত নয়নে পরীক্ষায় বসলো ছেলে

বাকৃবি গ্রীন ভয়েস শাখার শীতবস্ত্র বিতরণ

কুড়িগ্রাম ভেটেরিনারি এসোসিয়েশনের আহবায়ক ড. গোলজার, সদস্য সচিব মারুফ

শিশু থেকে বৃদ্ধ- নৌকার মাঝি শামীম মাস্টারের পক্ষে সবাই একতাবদ্ধ

হাবিপ্রবিতে বায়োকেমিস্ট্রি বিভাগের কোর্স কারিকুলাম উন্নয়নে আলোচনা সভা

বিশ্ববিদ্যালয় দিবসে হাবিপ্রবিতে “প্রতিষ্ঠা-প্রাপ্তি-প্রত্যাশা” শীর্ষক আলোচনা সভা

ইংরেজি না জানায় পাকিস্তানের অধিনায়ককে নিয়ে উপহাস

চিকিৎসকের অবহেলায় মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন হাবিপ্রবি কর্মকর্তা

খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি করে খাদ্য নিরাপত্তা টেকসই করতে হবে: কৃষিমন্ত্রী