ঢাকাশুক্রবার , ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১
  1. আনন্দধারা
  2. আন্তর্জাতিক
  3. ইসলাম ও জীবন
  4. কৃষি ও অর্থনীতি
  5. ক্যাম্পাস
  6. খুলনা
  7. খেলাধুলা
  8. গল্প ও কবিতা
  9. গুরুত্বপূর্ণ ওয়েব লিংক
  10. চট্রগ্রাম
  11. চাকুরী বার্তা
  12. জনমত
  13. জাতীয়
  14. ঢাকা
  15. পরিবেশ ও বিজ্ঞান

প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির ২৩তম বছরে হাবিপ্রবি

প্রতিবেদক
বুলেটিন বার্তা
সেপ্টেম্বর ১০, ২০২১

প্রতিষ্ঠার ২২ বছর শেষ করে আগামীকাল ১১ সেপ্টেম্বর ২৩তম বছরে পদার্পন করবে কৃষি ও বিজ্ঞান চর্চার উচ্চশিক্ষার বিদ্যাপীঠ হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (হাবিপ্রবি)। ১৯৯৯ সালের ১১ সেপ্টেম্বর তৎকালীন ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনের মধ্য দিয়ে যাত্রা শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়টি। দক্ষ গ্র্যাজুয়েট তৈরির লক্ষ্য নিয়ে নানাবিধ সংকট থাকা স্বত্ত্বেও এগিয়ে চলছে সামনের দিকে৷ দীর্ঘ এ পথচলায় প্রাপ্তির খাতায় যেমন যুক্ত হয়েছে নানা অর্জন,তেমনি অপ্রাপ্তির পাতাও।

জানা যায়, দিনাজপুর সদর হতে ১০ কিলোমিটার দূরে বাঁশেরহাট নামক স্থানে ৮৫ একর জায়গা জুড়ে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (হাবিপ্রবি) ক্যাম্পাসটি অবস্থিত।তেভাগা আন্দোলনের অন্যতম নেতা হাজী মোহাম্মদ দানেশের নামে নামকরন করা হয় বিশ্ববিদ্যালয়টির। বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে যাত্রা শুরুর পূর্বে এটি ১৯৭৬ সালে এগ্রিকালচারাল এক্সটেনশন ট্রেনিং ইনিস্টিটিউট (AETI) হিসেবে কৃষিতে ডিপ্লোমা ডিগ্রী প্রদান করতো। পরে ১৯৮৮ সালের ১১ নভেম্বর ইনস্টিউটকে স্নাতক পর্যায়ে কৃষি কলেজে উন্নীত করা হয়। এটি তখন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ এর অধিভুক্ত কলেজ ছিল। ২০০০ সালে কলেজটিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে উন্নীত করার লক্ষে “বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন প্রকল্প” গ্রহণ করা হয়। ৮ জুলাই ২০০১ হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় আইন পাশ হয় এবং ২০০২ সালের ৮ এপ্রিল প্রজ্ঞাপন জারি হওয়ায় মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশিষ্ট মৃত্তিকা বিজ্ঞানী প্রফেসর ড: মো: মোশাররফ হোসাইন মিঞাঁ কে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ প্রদান করা হয়। বর্তমানে ৭ম উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড.এম.কামরুজ্জামান।
সবুজ গাছপালার সমারোহে বেষ্টিত এ বিশ্ববিদ্যালয়ে আছে লাল-সাদা ইটের দৃষ্টিনন্দন সুবিশাল ভবন, আছে শহীদদের স্মরণে শহীদ মিনার, জিমন্যাশিয়াম, টিএসসি, ক্যান্টিন।অবকাঠামোর মধ্যে রয়েছে বৃহৎ কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, ৫টি অ্যাকাডেমিক ভবন (১ টি নিমার্ণাধীন) , একটি প্রশাসনিক ভবন, ৫টি ছাত্র হোস্টেল(একটি বিদেশী শিক্ষার্থীদের), ৪ টি ছাত্রী হোস্টেল (নির্মাণাধীন ১ টি সহ) আধুনিক সাজসজ্জা বিশিষ্ট ১০০ আসনের একটি ভিআইপি সেমিনার কক্ষ, ৬০০ ও ২৫০ আসন বিশিষ্ট দুটি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত অডিটরিয়াম। এছাড়াও একটি বিশ্ববিদ্যালয়কে পূর্ণাঙ্গ করতে রয়েছে শিক্ষক-কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের ক্লাব,২টি মসজিদ, ১৩৬টি আবাসিক ইউনিট/ভবন,১টি শিশুপার্ক, পোষ্ট অফিস, রূপালী ব্যাংক শাখা, মেঘনা ব্যাংক শাখা, শ্রমিক ব্যারাক, নিজস্ব বৈদ্যুতিক লাইন,বৃহৎ খেলার মাঠ, ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ এবং ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থা। গবেষণা ও প্রশিক্ষণের সমন্বয় ও সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য ইনস্টিটিউট অব রিসার্চ এন্ড ট্রেনিং (আই.আর.টি.)। আছে একটি ভি. আই. পি গেস্ট হাউস, হাবিপ্রবি স্কুল, ডাক্তার ও এ্যাম্বুলেন্সসহ ১২ শয্যার একটি মেডিক্যাল সেন্টারও। গবেষণালব্ধ থিসিস, রিপোর্ট, জার্নালের পাশাপাশি রয়েছে ৩৫ হাজার বইয়ের সমৃদ্ধ লাইব্রেরি। দুষ্প্রাপ্য গাছ-গাছালির আকর্ষণীয় সংগ্রহ নিয়ে গড়ে উঠেছে একটি সমৃদ্ধ বোটানিক্যাল গার্ডেন এবং বিভিন্ন বিভাগের তত্ত্বাবধানে গবেষণার জন্য জামপর্স্নাজম সেন্টার। বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হিসেবে সরকারি শহীদ আকবর আলী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কলেজ রয়েছে। কৃষকের দোর গোড়ায় কৃষিসেবা পৌঁছে দিতে নির্মিত হয়েছে কৃষক সেবা কেন্দ্র, গবাদিপশুর চিকিৎসা সেবায় রয়েছে ভেটেরিনারি টিচিং হাসপাতাল ও মোবাইল ভেটেরিনারি ক্লিনিক, স্কলারশিপ ও ক্যারিয়ার সংক্রান্ত তথ্যের জন্য আছে ক্যারিয়ার এডভাইজারি সার্ভিস (ক্যাডস) এবং একটি কৃষি,মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ গবেষণা কমপ্লেক্স।

আরও পড়ুনঃ  জাতীয় শোক দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে কুড়িকৃবি উপাচার্যের শ্রদ্ধাঞ্জলি

এ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার মাধ্যম ইংরেজি কোর্স ক্রেডিট সেমিস্টার পদ্ধতিতে পরিচালিত । বর্তমানে ৯টি অনুষদের অধীনে (পোস্টগ্র্যাজুয়েট সহ) ৪৫টি বিষয়ের ওপর ২৩ টি ডিগ্রি প্রদান করা হয় এবং প্রায় ১২ হাজার শিক্ষার্থীর বিপরীতে শিক্ষক রয়েছেন ৩২১ জন। এর মধ্যে অর্ধশতাধিক শিক্ষক উচ্চতর ডিগ্রির জন্য দেশের বাহিরে অবস্থান করছেন বলে জানা গেছে। তবে শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীর অনুপাত ১:২০ হওয়ার কথা থাকলেও সেখানে এখন রয়েছে ১:৩৯ । যা প্রায় দ্বিগুণ। অপরদিকে শিক্ষার্থী সংখ্যা বেশি হওয়ার কারণে একই সাথে একই ক্লাসে একজন শিক্ষককে শতাধিক শিক্ষার্থীর ক্লাস নিতে হচ্ছে। ফলে যারা পিছনের সারিতে বসেন তাঁদের অনেকেই ক্লাসে মনোযোগী হতে পারেন না। যা গুণগত শিক্ষার মানোন্নয়নে অন্তরায়।

নানা প্রাপ্তির মাঝেও হিসাবের খাতায় ছোট নয় অপ্রাপ্তির তালিকাও। দীর্ঘ এ পথচলায় নানামুখী সংকট ছিল প্রতিষ্ঠানটির নিত্য সঙ্গী। তাই ২২ বছরেও নানাবিধ সংকটের কাঠগড়া থেকে বের হতে পারেনি বিশ্ববিদ্যালয়টি। বিভাগ ও শিক্ষক-শিক্ষার্থী সংখ্যা বাড়লেও কাঙ্ক্ষিত মানের শিক্ষা ও গবেষণা নিশ্চিত করতে পারেনি বিশ্ববিদ্যালয়টি। নিশ্চিত হয়নি শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আবাসন ব্যবস্থাও। পর্যাপ্ত নয় পরিবহন সংখ্যাও। ছাত্র সংসদের ফি নেয়া হলেও দুই দশকেও নির্বাচন হয়নি ছাত্র সংসদ, এমনকি নেই কোন ছাত্র সংসদ ভবন। শিক্ষার্থীরা দাবি করে আসলেও এ বিষয়ে ইতিবাচক কোনো পদক্ষেপও নেয়নি কর্তৃপক্ষ। প্রায় এক দশক থেকে নেই শিক্ষক সমিতিরও কোন কার্যক্রম। বিশ্ববিদ্যালয় আইনে রেজিস্টার্ড গ্র‍্যাজুয়েট এর কথা উল্লেখ থাকলেও এখন পর্যন্ত সে স্বীকৃতি পায়নি বিগত সময়ে পাশ করে যাওয়া শিক্ষার্থীরা। এ দীর্ঘ ২২ বছরে উপ-উপাচার্য নিয়োগও হয়নি বিশ্ববিদ্যালয়টিতে। হয়নি কোন এলামনাই এসোসিয়েশনও। দীর্ঘ এই সময়ে সমাবর্তন হয়েছে মাত্র একবার সেটিও ১ দশক পূর্বে। প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় হলেও ইন্টারনেট সেবা থেকে বঞ্চিত রয়েছেন হলের শিক্ষার্থীরা। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার অন্যতম অংশ গবেষণা। সেই গবেষণা কাজের জন্য নেই পর্যাপ্ত গবেষণা মাঠ কিংবা আন্তজার্তিক মানের গবেষণাগার। যেগুলো আছে সেগুলোতে আছে নানাবিধ সমস্যা। বেশিরভাগ শিক্ষকই গবেষণায় মন না দিয়ে অভ্যান্তরীণ রাজনীতিতে ব্যস্ত সময় পার করেন। দুই দশকের অধিক বয়সী বিশ্ববিদ্যালয়টিতে বর্তমান বিভাগ সংখ্যা ৪৫টি। নতুন বিভাগ খোলায়ও রয়েছে নানা সংকট। নতুন অনেকে বিভাগেরই নেই নিজস্ব শ্রেণিকক্ষ, ল্যাব ও সেমিনার কক্ষ। ফলে ক্লাস করতে দুর্ভোগ পোহাতে হয় শিক্ষার্থীদের।

আরও পড়ুনঃ  আইজিপির সাথে কুড়িগ্রাম কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ভিসির সাক্ষাৎ


বিজনেস স্টাডিজ অনুষদে শিক্ষার্থী নুর জাহান আক্তার প্রত্যাশার কথা জানিয়ে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম লক্ষ্য গবেষণা। শিক্ষা ও গবেষণার মান বাড়ানো, গবেষণার মাধ্যমে একটা প্রতিষ্ঠান উন্নতির উচ্চ শিখরে যেতে পারে।তবে,একই সাথে অবকাঠামো ও শিক্ষার অনুকূল পরিবেশ ও গুরুত্বপূর্ণ। যেসব বিভাগে শিক্ষক সংকট রয়েছে,নতুন শিক্ষক নিয়াগের ব্যবস্থা করা।আবাসন সমস্যা তো অনেক দিনের।আবাসিক হলে পর্যাপ্ত জায়গা না থাকায় অনেক শিক্ষার্থী বাইরে অবস্থান করছে।অনেক হলে শিক্ষার্থীদের জন্য রিডিং রুম নেই,প্রার্থনা রুম নেই।হলের গনরুমের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার সময় বাইরে বেলকোনিতে পড়তে হয়।আবাসিক সংকট নিরসন এবং হলের শিক্ষার্থীদের পড়াশুনার সুষ্ঠ পরিবেশ বজায় রাখা।লাইব্রেরিতে অনেক বই পাওয়া যায় না,লাইব্রেরির সিট সংখ্যা পর্যাপ্ত নয় শিক্ষার্থীদের তুলনায়, এইজন্য লাইব্রেরির সিট সংখ্যা এবং বই সংখ্যা বাড়ানোর ব্যবস্থা করা। বিশ্ববিদ্যালয় দিবসে এই বিষয় গুলো প্রত্যাশা করছি।
সফিউল আযম অপু প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির কথা বলতে গিয়ে জানিয়েছেন, শেষ বর্ষে এসে প্রাপ্তি- অপ্রাপ্তি আর প্রত্যাশার হিসেবটা একটু বড়ই! প্রথমই বলতে হয় প্রাপ্তির কথা,২০১৭ সালে পিঠ যখন দেয়ালে ঠেকে গিয়েছিলো তখন নিজের আইডেন্টিটি তৈরী করে দিয়েছিলো সবুজেঘেরা এই হাবিপ্রবি। নিজেকে তুলে ধরার অনেক প্ল্যাটফর্ম পেয়েছি, পেয়েছি ব্রড মাইন্ডেড টিচার,মেন্টর আর বন্ধুবান্ধব। অপ্রাপ্তির প্রথম কাতারে রাখতে চাই সময়মত গ্রেজুয়েশন কম্পলিট করতে না পারাটা। দ্রুত অ্যালামনাই এসোসিয়েশন, সুন্দর রাজনৈতিক চর্চা, দ্রুত কনভোকেশন এমন শত শত প্রত্যাশা-ই রয়েছে!

নতুন উপাচার্যের ভাবনা-
গত ৩০ জুন ২০২১ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭ম উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ পান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড.এম.কামরুজ্জামান। বিশ্ববিদ্যালয়ের নানামুখী সংকট সমাধানে তিনি তাঁর ভাবনা জানিয়ে বলেন, বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির গুরত্ব অনুধান করেছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধুর সেই দর্শনকে গুরত্ব দিয়েই তেভাগা আন্দোলনের অন্যতম নেতা হাজী মোহাম্মদ দানেশ এর নামে ১৯৯৯ সালের ১১ সেপ্টেম্বর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনের শুভ উদ্বোধন করেছিলেন জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উৎকর্ষ সাধনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দক্ষ মানবসম্পদ গড়ার যে লক্ষ্য সেই লক্ষ্য অর্জনে একজন প্রকল্প পরিচালক ও সাবেক ০৬ জন ভাইস চ্যান্সেলরের নেতৃত্বে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের অন্যতম একটি বৃহৎ বিশ্ববিদ্যালয়ে রুপান্তরিত হয়েছে। ৯ টি অনুষদ, ৪৫ টি বিভাগ ও ২৩ টি ডিগ্রী অফারিং এন্টিটি ও প্রায় ১২ হাজার শিক্ষার্থীর সমন্বয়ে লক্ষ্য অর্জনের সেই অবিরাম প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। কৃষি ক্ষেত্রে ৬ টি ফসলের জাত ও প্রকৌশল ক্ষেত্রে একটি গ্রেইন ড্রায়ারসহ কৃষি খামারের বিভিন্ন যন্ত্রপাতি উদ্ভাবিত হয়েছে।বিশ্ববিদ্যালয় একজন ভাইস চ্যান্সেলর হিসেবে আমার লক্ষ্য হচ্ছে শিক্ষা ও গবেষণা ক্ষেত্রে এ বিশ্ববিদ্যালয়কে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। বিশ্ববিদ্যালয়ের ২২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শিক্ষক,কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শুভানুধ্যায়ী সকলকে আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।
তিনি আরও জানান, গবেষণা সুবিধা সম্প্রসারণ, মাঠ গবেষণা কার্যক্রম ও সেন্ট্রাল ল্যাবরেটরির যে কনসেপ্ট রয়েছে সেটিকে ধারণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা কার্যক্রম আরও ত্বরান্বিত করতে কাজ করবো। আগামী ২০২৩ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের রজতজয়ন্তী। এ উপলক্ষে আমরা ব্যাপক কর্মসূচি নিয়েছি, বিশেষ করে এই সময়ে শিক্ষার্থীদের দীর্ঘদিনের প্রত্যাশিত কনভোকেশন, বিশ্ববিদ্যালয়কে আন্তজার্তিক পরিমণ্ডলে উন্নীত করা ও র‍্যাংকিং এ বিশ্ববিদ্যালয়কে মর্যাদাপূর্ণ স্থানে নিয়ে যাওয়াই আমাদের মূল লক্ষ্য। বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত সকলের মাঝে সৌহাদ্যপুর্ন সম্পর্ক ও সম্প্রীতি গড়ে তুলতে আমি কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি। করোনায় শিক্ষার্থীদের জীবন থেকে যে মূল্যবান সময় নষ্ট হয়ে গেছে তা কমিয়ে আনতে ইতোমধ্যে আমরা অনলাইন পরীক্ষা নিতে শুরু করেছি। আগামীতে যাতে কোন সেশনজট না থাকে সে লক্ষ্যেও আমরা কাজ শুরু করেছি। সর্বোপরি,একুশ শতকের উপযোগী করে শিক্ষার্থীদের দক্ষ মানবসম্পদরূপে গড়ে তোলা, সচ্ছতার সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকান্ড পরিচালনার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী সবার সম্মিলিত উদ্যোগী ভূমিকা ও সহযোগিতা কামনা করছি।

আরও পড়ুনঃ  শেখ রাসেল এঁর জন্মদিন উপলক্ষ্যে কুড়িকৃবি উপাচার্য শুভেচ্ছা বাণী

সর্বশেষ - জাতীয়

নির্বাচিত সংবাদ

পিকেএসএফ-এর প্রকল্প কার্যক্রমের ভূয়সী প্রশংসায় ইইউ রাষ্ট্রদূত

পথশিশুদের মাঝে খাবার বিতরণে হাবিপ্রবির ‘প্রচেষ্টা’

বঙ্গবন্ধুর শিক্ষা ও গবেষণা ভাবনা

স্বশরীরে পরীক্ষা নিবে হাবিপ্রবি

জাতীয় শোক দিবসে দিনব্যাপী নানা কর্মসূচি পালন করবে হাবিপ্রবি

ইউজিসি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ফেলোশিপ অর্জনে অধ্যাপক আফজাল হোসেনকে  হাবিপ্রবি উপাচার্যের অভিনন্দন

বাকৃবি গ্রীন ভয়েস শাখার শীতবস্ত্র বিতরণ

বিশ্ব পরিবেশ দিবসে ‘হাবিপ্রবি গ্রীন ভয়েসে’র আলোচনা সভা

বিশ্বব্যাংক ও এসডিএস

বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধি দলের এসডিএস পরিদর্শন

মহানবী (সা:) কে বিজেপি নেতার অবমাননাকর মন্তব্যের প্রতিবাদে হাবিপ্রবিতে মানবন্ধন